শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০৭:১৪ অপরাহ্ন

বহুমুখী প্রতারক প্রদীব গ্রেফতার হলেও এখনো অধরা রেহেনা

ফাইল ছবি

র‌্যাবের অভিযানে বহুমুখী সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ২জন সদস্য গ্রেফতার হলেও এই চক্রের আরো দুইজন মূলহোতা এখনো অধরা রয়েছে। যারা কখনো মানবাধিকার কর্মী আবার কখনো সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানী, চাঁদাবাজী, প্রতারণাসহ নানা অপকর্ম করে আসছিল। তারই প্রেক্ষিতে সোমবার বিকেলে র‌্যাব-১১ চালিয়ে বহুমুখী প্রতারণার মূলহোতা প্রদীব চন্দ্র বর্মণ ও আনিসুর রহমান নামের দুইজন প্রতারককে গ্রেফতার করে। তবে এই চক্রের সদস্য ফেরদৌসী আক্তার রেহানা ও জহিরুল ইসলাম সাগর এখনো অধরা রয়েছে। ইতিমধ্যে প্রতারক ফরদৌসী আক্তার রেহানার বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

জানাগেছে, বহুমুখী প্রতারক চক্রের মূলহোতা প্রদীপ চন্দ্র বর্মণ ওয়াকিটকি সেট, মনোগ্রাম সম্বলিত জ্যাকেট ও হ্যান্ডকাফ দেখিয়ে নিজেকে একাধারে ‘সমাজের জন্য আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থা’ তালাশ নিউজ টিভি-৭৯ ও দৈনিক সত্যের সংগ্রাম পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, প্রকাশক ও সম্পাদক হিসেবে পরিচয় প্রদান করে থাকে এবং সে ভুয়া আইডি কার্ড তৈরি করে, ট্রাফিক পুলিশ ও যুব ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে চাকুরীর আশ্বাস দিয়ে এবং তার কথিত টিভি চ্যানেল ও ‘সমাজের জন্য আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থার’ অন্যান্য সদস্যপদে ও নিউজ চ্যানেলের জেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি প্রদান করে সরল বিশ্বাসী মানুষের কাছ থেকে চাকুরী প্রদানের আশ্বাস দিয়ে পরিকল্পনা মাফিক বিপুল পরিমান টাকা হাতিয়ে নিত বলে জানায়। প্রদীপ চন্দ্র বর্মণের প্রধান সহযোগী হিসেবে কাজ করতে ফেরদৌসী আক্তার রেহানা ও জহিরুল ইসলাম। ফেরদৌসী আক্তার রেহানা আগে এড. মজিদ খন্দকারের মুহুরী হিসেবে কাজ করতেন। পরে প্রদীপ চন্দ্র বর্মণের সাথে পরিচয় হওয়ার পর প্রতারনা চক্র গড়ে তুলের। ফেরদৌসী আক্তার রেহানার বয়ফ্রেন্ড জহিরুল ইসলামকে এই চক্রে যুক্ত করেন। স্বস্তাপুরের বাসিন্দা ফেরদৌসী আক্তার রেহানার এক ছেলে ও এক মেয়ে থাকলেও স্বামীর সাথে সম্পর্ক নেই। তবে বয়ফ্রেন্ড জহিরুল ইসলামকে নিয়েই প্রতারণা ফাঁদ পেতে সাধারণ মানুষদের হয়রানী করে আসছে বলে অভিযাগ রয়েছে। মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে শহর জুড়ে দাবড়িয়ে বেড়াতো তারা দুইজন। নারায়ণগঞ্জ ছাড়াও দেশের বেশ কয়েকটি জেলাতে এই চক্রের সদস্যরা সক্রিয় রয়েছেন।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরশেনের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেছিলেন সাইদা আক্তার শিউলি নামের এক নারী। ঐ মামলার ২নং আসামী হলেন ফেরদৌসী আক্তার রেহানা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফসেবুকে লাইভে এসে সাঈদা আক্তার ওরফে সায়েদা শিউলি নামক এক নারীর বিরুদ্ধে আপত্তিকর, বানোয়াট ও মিথ্যা কাহিনী সাজিয়ে কূৎসা রটানোর অভিযোগে কাউন্সলির মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদসহ ফেরদৌসী আক্তার রেহানার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ফতুল্লা মডলে থানায় মামলা হয়েছিল।

অভিযোগে রয়েছে, সায়েদা শিউলিকে ফেরদৌসী আক্তার রেহানা ফেসবুকে লাইফে এসে অকথ্য ভাষায় মন্তব্য করে সম্মানহানি করেছেন। এমনকি মানবাধিকার কর্মী পরিচয় দিয়ে শিউলির বাড়িতে গিয়ে তার অনুপস্থিতিতে হয়রানি করেছে।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ফেরদৌসী আক্তার রেহানার বর্তমান বয়ফ্রেন্ড জহিরুল ইসলাম ছিলেন সায়েদা শিউলির সাবেক স্বামী। তাই খোরশেদ ও সায়েদা শিউলির বিষয় জানাজানি হলে সক্রিয় হয়ে উঠেন প্রতারক চক্রের মূলহোতা ফেরদৌসী আক্তার রেহানা। এদিকে, প্রদীব চন্দ্র বর্মণ ও আনিসুর রহমান গ্রেফতারের পর দ্রুত ফেরদৌসী আক্তার রেহানা ও জহিরুল ইসলামকে গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন ভূক্তভোগীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2020 bdnewseye.com
Developed BY M HOST BD