রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২০ অপরাহ্ন

কুমুদিনী নিয়ে সেলিম ওসমানের বৈঠক

বৈঠক শেষে ডিসির কক্ষ থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন সাংসদ ও ব্যবসায়ী নেতা সেলিম ওসমান ।

শ্রম আইন অনুযায়ী প্রাপ্য পাওনা কিংবা পুনর্বাসনের দাবিতে আন্দোলন করছে কুমুদিনী শ্রমিকরা। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (৮ জুন) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক বৈঠকে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ ও বিকেএমইএ’র সভাপতি সেলিম ওসমান একক সিদ্ধান্ত দিয়েছেন বলে অভিযোগ শ্রমিকদের। সাংসদের এমন সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করেছেন তারা।
জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ’র উপস্থিতিতে তার কক্ষে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল তানভীর মাহমুদ পাশা, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি ও ব্যবসায়ী নেতা শাহাদাত হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকু। শ্রমিকদের পক্ষে তাদের আইনজীবী ও শ্রমিক নেতা অ্যাড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, কুমুদিনীর শ্রমিক ও শহরের খানপুরের উত্তর কুমুদিনা বাগানের বাসিন্দা মো. জুয়েল, মো. নাসির প্রমুখ।
বৈঠক শেষে ডিসির কক্ষ থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সাংসদ ও ব্যবসায়ী নেতা সেলিম ওসমান বলেন, ‘এখানে দুই প্রকার লোক কাজ করে। একটি রেগুলার চাকরি অন্যটি কন্ট্রাক্ট বেসিসে। কিছু আছে যাদের দাদা ৫০ বছর আগে এখানে কাজ করেছে, তখন থেকে তারা সেখানে আছে। তার দাদা ৫০ বছর আগে এখানে কাজ করেছে বলে এই সম্পত্তি তো তাদের হয়ে যাবে না। তাই আমরা একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যারা এখানে কোম্পানি নিয়োগে চাকরি করছে তাদের দেনা-পাওনা শোধ করতে হবে। এবং যারা কন্ট্রাক্ট বেসিসে চাকরি করছেন তারা যে ঘরটিতে অবস্থান করছেন সেই ঘরটিকে তারা উঠিয়ে নিয়ে যাবেন। এবং তাদের কনভেন্স হিসেবে ৩ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।’
জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বৈঠক প্রসঙ্গে প্রেস নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নিজে কুমুদিনীর ক্যান্সার রিসার্চ সেন্টার ও নার্সিং ইনস্টিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেছেন। তাই আমরা জেলা প্রশাসনের পক্ষে মালিকপক্ষ, শ্রমিক ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠক ডেকেছিলাম। বৈঠকে স্থানীয় সাংসদ, জেলা পুলিশ সুপার, র‌্যাবের অধিনায়ক, শ্রমিক ও তাদের আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে নিয়মিত শ্রমিকদের প্রাপ্য পাওনা প্রদান করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আর যারা পূর্বপুরুষদের সূত্র ধরে বাগানে বসবাস করে আসছিলেন তাদের মালামাল স্থানান্তর বাবদ ৩ হাজার টাকা প্রদান করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’
তবে এই সিদ্ধান্ত শ্রমিকরা প্রত্যাখ্যান করেছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন, ‘এটা কোনো বৈঠক নয়। একপাক্ষিকভাবে পূর্বেই তারা সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছেন। সাংসদের উপরে কেউ কথা বলতে পারবে না। শ্রমিকদের কোনো দাবি মানা হবে না। তাদের হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়েছে। ৩০ জুনের মধ্যে ঘর না ছাড়লে তাদের জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হবে বলেছেন সাংসদ সেলিম ওসমান। এই সিদ্ধান্ত শ্রমিকরা মানে না। তাদের শ্রম আইন অনুযায়ী প্রাপ্য পাওনা পরিশোধ করতে হবে।’
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কুমুদিনীর এক শ্রমিক বলেন, বৈঠকে তাদের কোনো কথাই শোনা হয়নি। মালিকের পক্ষে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন সাংসদ। বৈঠকে শ্রমিকরা কথা বলতে গেলে তাদের ধমক দিয়ে চুপ করিয়ে দেয়া হয়। তবে শ্রমিকরা আলোচনায় বসেছেন। প্রাপ্য পাওনা বুঝে নেওয়ার দাবিতে তাদের আন্দোলন চলবে। তবে শ্রমিকদের অনেকেই মঙ্গলবারের বৈঠকের পর ভীত হয়ে পড়েছেন।
বৈঠকে উপস্থিত থাকা কুমুদিনীর ওই শ্রমিক আরও বলেন, ‘আমাদের কথা একটাবারের জন্য এমপিসাব ভাবেন নাই। কুমুদিনীর মালিকের পক্ষেই সব কথা বলছেন। আমাদের ভয়ভীতিও দেখানো হইতেছে। আমরা তার সিদ্ধান্ত মানি না। কিন্তু জানের ভয় তো আছে। আমাদের প্রাপ্য পাবার জন্য আন্দোলন কতটুকু করতে পারবো তাও জানি না।’
উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জে কুমুদিনী ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স এন্ড ক্যান্সার রিসার্চ (কেআইআইএমএস কেয়ার) স্থাপন করা হবে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন। এই প্রকল্পের আওতাধীন ছাত্রী হোস্টেল নির্মাণের জন্য ঈশা খাঁ সড়কের নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের পাশের উত্তর কুমুদিনী বাগানের জায়গা নেওয়া হবে। এজন্য এই বাগানের আড়াইশ’ শ্রমিককে তাদের বাসস্থান ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারা অধিকাংশই কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের বেঙ্গল বিডি লিমিটেডের জুট প্রেসের শ্রমিক। তাদের পূর্বপুরুষরাও এই কারখানার শ্রমিক ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...


© All rights reserved © 2020 bdnewseye.com
Developed BY M HOST BD